শীতের খেজুরের গুড়ে নানা উপকারিতা রয়েছে

শীত এলেই খেজুরের গুড়ের নহর বয়ে যায়। আমাদের দেশের গ্রাম-বাংলার একটি ঐতিহ্য হলো এই খেজুরের গুড়। তবে এই খেজুরের গুড়ে কী কী উপকারিতা আছে তা আমাদের জানা নেই। আজ জেনে নিন। শীত এলেই খেজুরের গুড় বানানো শুরু হয়। খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে তা আগুনে জ্বালিয়ে খেজুরের গুড় তৈরি করা হয়।

সেই গুড় দিয়ে তৈরি পিঠে, পুলি, পায়েস, মিষ্টি নিয়ে মজে থাকে পুরো বাঙালি। গবেষকরা বলেছেন গুড়ের উপকারিতা অনেক। তারা বলেছেন, আপনি যদি প্রতিদিন খাওয়ার পর একটু গুড় খান তাহলে হজম হবে খুব তাড়াতাড়ি। আমাদের হজমে সাহায্য করা এনজাইমের শক্তিকে গুড় বাড়িয়ে দেয়।

সে কারণে প্রতিদিন খাওয়ার পর গুড় খাওয়া উচিত। যদিও ডায়াবেটিক যাদের রয়েছে তাদের কথা ভিন্ন।

কী কী উপকার করে খেজুরের গুড়?

# আমরা জানি শরীরে আয়রণের অভাব ঘটলে হিমগ্লোবিনের ঘাটতি হয়। যার কারণে নানারকম সমস্যার সৃষ্টি হয়। গুড়ে প্রচুর পরিমাণে আয়রনণ থাকে। প্রতিদিন অল্প পরিমাণে গুড় খেলে শরীরে আয়রণের ঘাটতি পূরণ হতে পারে।

# মানব শরীরে কার্বোহাইডেড জাতীয় খাবার অর্থাৎ চিনি এনার্জি প্রদান করে। তবে এই এনার্জি অনেক সময় আমাদের শরীরে রক্তে চিনির পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়ে কিডনি, চোখ এবং রক্তের চাপ বাড়িয়ে দেয়। গুড় খেলে এই সমস্যাটিও কম হতে পারে। কারণ হলো গুড় রক্তের সঙ্গে মিশতে বেশ কিছুটা সময় লাগে। যে কারণে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ হঠাৎ করে বেশি কমে যাওয়া বা বেড়ে যেতে পারেনা। যার ফলে আমাদের শরীরের অন্যান্য অঙ্গগুলির ক্ষতি খুব কম হয়।

# প্রিমেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম কিংবা ‌পিএমএস সমস্যায় কমবেশি প্রায় সমস্ত মহিলারা ভুগে থাকেন। প্রতিদিন নিয়ম করে অল্প পরিমাণ গুড় খেলে শরীরে হরমোনের সমতা বজায় থাকবে। তাছাড়া গুড় আমাদের শরীরে হ্যাপি হরমোনের বৃদ্ধি ঘটায় এবং হরমোনের সমতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

# গুড় মানুষের শরীর গরম রাখতে সাহায্য করে। যে কারণে সর্দি, কাশি, ভাইরাল ফিবারের হাত হতে রক্ষা করে এবং শরীরকে গরম রাখে। তাই এই শীতের সময় গুড় খেতে পারেন। তবে যাদের ডায়াবেটিক রয়েছে তাদের কথা অবশ্য একটু ভিন্ন। আর যাদের ডায়াবেটিক নেই তারা প্রতিদিন নিয়ম করে সামান্য হলেও কিছু পরিমাণ গুড় খান।

পোষ্টটা কেমন লেগেছে সংক্ষেপে কমেন্টেস করে জানাবেন৷ T= (Thanks) V= (Very good) E= (Excellent) আপনাদের কমেন্ট দেখলে আমরা ভালো পোষ্ট দিতে উৎসাহ পাই।

Check Also

মুখের অবাঞ্ছিত লোম, তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যায় কাজে লাগান ডিম

মাছ, মাংসে অরুচি বা আপত্তি থাকতে পারে, কিন্তু ডিম ভালবাসেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *