রাধা কেন কৃষ্ণকে বিয়ে করেনি, জেনে নিন এক অজানা কাহিনি

পুরাণের শাস্ত্রমতে রাধা কৃষ্ণের প্রেমলীলা কথা প্রায় সকল হিন্দুদের জানা রয়েছে । কিন্তু রাধা কৃষ্ণ প্রেম কাহিনী সর্বশ্রেষ্ঠ হলেও এই প্রেম কাহিনীতে রয়েছে বিচ্ছেদের যন্ত্রণা । এত সুন্দর প্রেম কাহিনী ও সবশেষে কিন্তু মিলতে হয়নি তাদের প্রেমলীলাতেই গাঁথা ছিল বিচ্ছেদের সুর । এই কাহিনী বিশ্লেষণ করি অনেক পৌরাণিক বিদরা অনেক মতামত দিয়েছেন । কিন্তু রাধা কৃষ্ণ চিরজন্ম জুড়ে প্রেমিক-প্রেমিকা রূপে চিহ্নিত । এরা কোনদিনও বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়নি ।

একজন পৌরাণিকবিদের থেকে জানা যায় কৃষ্ণের জন্ম হয় শ্রাবণ মাসে । তিনি অনেক অল্প বয়সী প্রচুর সংখ্যক গোপীদের প্রিয় হয়ে উঠেছিল । সাত থেকে দশ বছর বয়সের মধ্যে গোপীদের সাথে নানা রকম লীলায় মেতে কে ছিলেন তিনি । শ্রীকৃষ্ণ আসলে বিষ্ণুর অবতার এই পৃথিবীতে এসেছিল তিনি ১০ থেকে ২৮ বছরের মধ্যে মথুরাতে বসবাস করত এবং তার দৈব শক্তি দিয়ে মধু রক্ষা করেছিল বিভিন্ন অশুভ শক্তির আক্রমণ থেকে ।

পুরাণের কোন এক সূত্রে থেকে জানা গেছে কৃষ্ণের যখন ১০ বছর পরে তখন তিনি রাধার সাথে প্রণয় আবদ্ধ হয়েছিলেন । তারপরই রাধাকৃষ্ণের বিচ্ছেদ ঘটে অর্থাৎ কৃষ্ণ তখন মথুরা ছেড়ে চলে যায় এবং তার পরে আর কোন দিন আর ফেরত আসে না । তাই অন্য কোন পুরান শাস্ত্রে বা পুঁথিতে রাধা কৃষ্ণের বিবাহের কোন উল্লেখই পাইনা ।

কিন্তু তাদের প্রেম কাহিনী শুরু হওয়ার আগে কৃষ্ণ কে অনেক বাধা ও সংগ্রাম এর সম্মুখীন হতে হয় । প্রথমদিকে রাধা কৃষ্ণ কে একটুও পছন্দ করত না কিন্তু নানান রকম কৌশলে কৃষ্ণ শুরু করে ফেলে রাধার সাথে এক অনবদ্য প্রেম কাহিনী ।

পুরান পুরাণে সূত্রে আমরা জানি যে বৃন্দাবনে গড়ে উঠেছিল রাধা কৃষ্ণের প্রেম কাহিনী আর এই বৃন্দাবনে রাধাকে অপেক্ষারত অবস্থায় রেখে কৃষ্ণ গেছিল তার মামা কংস কে বদ করতে মথুরাতে । কিন্তু মথুরাতে যাবার পর আর বৃন্দাবনে কৃষ্ণের আগমন ঘটেনি । মথুরাতেই তার একাধিক বিবাহ সম্পন্ন হয় । এরপরে মহাভারতের সমস্ত যুদ্ধ পরিচালনা করে কৃষ্ণ ।

কিন্তু তিনি একাধিক বিবাহ করা সত্ত্বেও শুধুমাত্র রাধাকে কেন বিবাহ করেনি এই বিষয়ে এক অজানা প্রশ্ন রয়ে গেছে। এক সূত্র থেকে জানা যায় যে বিবাহ সাধারণত হয়ে থাকে নারী এবং পুরুষের মধ্যে অর্থাৎ দুটো আলাদা সত্ত্বা সঙ্গে বিবাহ সম্পন্ন হয় ।

কিন্তু পুরান অনুযায়ী আসল রহস্য টাই হল রাধা এবং কৃষ্ণ দুটো একই সত্ত্বা তাহলে যদি রাধাকে বিয়ে করে তাহলে নিজের সাথে নিজের বিয়ে করা হবে তাই জন্যই তাদের বিবাহ হয়নি কারণ তারা দুজন একই সত্ত্বা ছিলেন । তাদেরকে আসলে একাত্মা রূপে আখ্যায়িত করা হয় ।

পোষ্টটা কেমন লেগেছে সংক্ষেপে কমেন্টেস করে জানাবেন৷ T= (Thanks) V= (Very good) E= (Excellent) আপনাদের কমেন্ট দেখলে আমরা ভালো পোষ্ট দিতে উৎসাহ পাই।

Check Also

সুখী দাম্পত্য জীবনের ১০ টি গোপন টিপস; যা বলেছেন চাণক্য

চণক্য বা কৌটিল্য বা বিষ্ণুগুপ্ত (খ্রিস্টপূর্ব ৩৭০-২৮৩ অব্দ)। একজন দার্শনিক, অর্থনীতিবিদ, রাজ-উপদেষ্টা ছিলেন এবং অর্থশাস্ত্র ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *