বন্ধ হচ্ছে ফ্রি ইনকামিং! মোবাইল ট্যারিফে বড়সড় রদবদল; বিস্তারিত পড়ুন…

গত কয়েক বছরে ভারতীয় টেলিকম সেক্টর ব্যাপক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে গেছে। জিওর আবির্ভাব টেলিকম সংস্থায় বিপ্লব এনেছে। তাই এখন আটার থেকে ডাটা সস্তা। টেলিকম সেক্টরে জিওর এই বড়সড় পরিবর্তনে হু হু করে বেড়েছে গ্রাহক সংখ্যা। ফলে লোকসানের মুখে পড়ে ভোডাফোন, ভারতী এয়ারটেলের মতো কোম্পানিগুলি। আয় বাড়াতে তাই কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাকি মোবাইল সংস্থাগুলি।

তাই এবার আজীবন ফ্রি কলের সুবিধা বন্ধ করছে বিভিন্ন টেলিকম সংস্থাগুলি। আমাদের দেশের ৯৫ শতাংশ মোবাইল ব্যবহারকারী প্রিপেড গ্রাহক। এই গ্রাহকের কথা মাথায় রেখে নতুন নতুন প্ল্যান আনে মোবাইল পরিষেবা সংস্থাগুলি। যার মধ্যে সবচেয়ে আকর্ষণীয় হল আজীবন ফ্রি ইনকামিং কলের সুবিধা।

এক দশক আগে চালু হওয়া এই প্লানে প্রিপেড গ্রাহকদের এককালীন দিতে হত ৯৯৯ টাকা। আর এই প্ল্যানটিকে চালু রাখতে ৬ মাসের মধ্যে একবার ১০ টাকা রিচার্জ করতে হত। আজীবন ফ্রি ইনকামিং কল বন্ধ হওয়ায় সমস্যায় পড়বেন অনেক গ্রাহক।

কারণ অনেকেই কথা বলেন বেশি, ইন্টারনেট ব্যবহার করেন কম। কিন্তু ফ্রি ইনকামিং বন্ধ হলে, এখন আর নূন্যতম ১০ টাকা রিচার্জ করেও মোবাইল পরিষেবা চালু রাখা যাবে না। ফোন ধরার জন্য খরচ করতে হবে কমপক্ষে ৩৫ টাকা। তবে গ্রাহকদের এক-একটি কলের জন্য মিনিট প্রতি পয়সা গুনতে হবে না।

২৮ দিনের জন্য বাড়তি ৩৫ টাকা দিলেই ফ্রি ইনকামিং কলের সুবিধা মিলবে। এছাড়া থাকছে ৬৫ এবং ৯৫ টাকার প্ল্যান। জিও-ও নাকি একই রকম প্ল্যান আনছে। ২৮ দিন ফ্রি কল রিসিভ করতে দিতে হবে ৯৮ টাকা। এই যে ৩৫ টাকার নতুন প্ল্যান চালু হচ্ছে, তাতে থাকছে ২৬ টাকার টকটাইম ও ১০০ এমবি ডেটা।

মারা যাবার আগে লেখা স্ট্যাটাস (পড়লে আপনি চোখের পানি ধরে রাখতে পারবেন না)

তাহমিদা জান্নাত নামের এই মেয়েটা কিছুদিন আগে মারা গেছে ক্যানসারে ।তার ফেসবুক আপডেটগুলো একজন শেয়ার করেছে ।পড়ে শেয়ার না করে পারলাম না । বাস্তবতা কি জিনিস, তা দেখিয়ে দিয়ে গেলো……

মারা যাবার আগে লেখা স্ট্যাটাস (পড়লে আপনি চোখের পানি ধরে রাখতে পারবেন না)-৭-৩-২০১৩………

আজ আমার ক্যান্সার জীবনের সপ্তম দিন। খবরটা বাবা মা আমাকে দেয়ার সাহস করে নাই । সারিন আমাকে জানায় আমার লিউকেমিয়া । কিভাবে নিব ব্যাপারটা বুঝতে পারছিলাম না । আমিতো ক্যানসারকে চাই নাই । তাহলে সে কেন আসলো আমার কাছে । আমিতো অন্য কাউকে চেয়েছিলাম…

যাহা পাই তাহা চাইনা ।১৩-৭-২০১৩………

শেষ পর্যন্ত স্কুলে যাওয়াও বন্ধ হল আমার.. । ব্লিডিং বেড়ে যাচ্ছে । কি অদ্ভুত । একসময় জ্বরের ভান করে পড়ে থাকতাম । আর এখন স্কুলে যাওয়ার জন্য সুস্থ থাকার অভিনয় করতে হয় । পোয়েটিক জাস্টিস ।
ক্যান্সার মনে হয় একটা মানুষের অতীতের সব খোজ খবর নিয়ে আসে । এই যে একসময় বৃষ্টি ভালো লাগত না । কিন্তু এখন যেন বৃষ্টিকেই আপন মনে হয় । রোদ অসহ্য লাগে । রোদ আমাকে আমার অক্ষমতার কথা মনে করিয়ে দেয় ।

২২-৯-২০১৩………

আজ আমার বন্ধুরা আমাকে দেখতে এসেছিল । ঐশি, মৌমিতা,সানি, রিয়ন । অনেকদিন পর একটা ভালো সময় কাটালাম । কিন্তু কোথায় যেন সুরটা কেটে গেছে । আমি জানি ওরা আমায় প্রচন্ড ভালোবাসে । সানি আমার চোখের দিকে তাকাচ্ছিল না। লজ্জায় বোধহয় । সম্পর্কটা শেষ হয়েছে প্রায় তিনমাস । আমার ক্যান্সারের কথা শুনে সানিই আস্তে আস্তে দূরে সরে যায় । আমি জানি ও আর মৌমিতা প্রেম করা শুরু করেছে । খারাপ লেগেছে ওরা আমাকে খোলা মনে ব্যাপারটা জানালেই পারত। সত্যি কথা শোনার অধিকার কি থাকেনা একজন ক্যন্সার রোগীর । সবাই এমন অভিনয় করে কেন ?

১৬-১-২০১৪………

অনেকদিন লিখিনি । অনেক দেরি হয়ে গেছে । রোগটা আমাকে গ্রাস করে ফেলছে । ইদানিং সানিকে খুব মনে পড়ে । ওকে ফোন দেই ধরেনা । ক্যান্সার তো ছোঁয়াচে না । তবে কেন এত অবহেলা । আজকাল রিসানের সাথে কথা বলে সময় কাটে আমার। ছেলেটার সাথে আমার ফোনে পরিচয় । কোন শর্ত ছাড়াই ভালোবাসে আমায় । কিন্তু আমার কিছু করার নেই । একজন ক্যান্সার রোগীর কাউকে ভালোবাসার কিংবা কারো ভালোবাসা পাওয়ার অধিকার নেই ।

২৬-১-২০১৪………

দ্বিতীয় কেমো দিয়ে বাসায় আসলাম । চুলের ব্যপারে সবসময় একটু বেশি খুত খুতে ছিলাম আমি । নতুন নতুন ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু কন্ডিশনার কিনতাম । এখন আর ওসবের প্রয়োজন হয়না । চুলই নেই, শ্যাম্পু দিয়ে কি করব । কাজের বুয়াকে বলে ড্রেসিং টেবিলটাকে ঘর থেকে বের করে দিয়েছি । আয়নায় তাকাতে ভালো লাগেনা । এদিকে বাবা মার মধ্যে ঝগড়া বেড়েই চলেছে দিন দিন । এই সম্পর্ক বেশিদিন টিকবে না আমি জানি । ওইদিন মাঝরাতে ঘুম ভেঙ্গে দেখি বাবা আমার পায়ের কাছে বসে কাদছে । ভালোবাসার বিয়ের এ কি পরিণতি । ভালোবাসার থেকে বোধহয় ক্যান্সারও ভালো…
২-২-২০১৪………

২৬ ঘন্টা পর আমার জ্ঞ্যান ফিরল । রিসানের সাথে ঝগড়া করলাম অনেকক্ষন । ওর সাথে ঝগড়া করতে আমার ভালো লাগে । ঝগড়া করার কেউ থাকা লাগে জীবনে । না হলে বেঁচে থাকাটাই বৃথা…

১৩-৩-২০১৪………

গত ৪৮ ঘন্টায় আমায় নিয়ে যমে ডাক্তারে টানাটানি হয়েছে । আমি আমার সর্বশক্তি দিয়ে চেষ্টা করেছি ডাক্তাররা যাতে জিতে । কিন্তু জানি শেষ পর্যন্ত জয়টা ক্যান্সারের হবে । লিখার শক্তি পাচ্ছিনা…

সানিকে অনেক মিস করছি । যদিও মিস করাটা উচিত না । ক্যান্সার রোগীদের কাউকে মিস করার অধিকার নেই…

২৫-৫-২০১৪………

এই লিখাটাই বোধহয় আমার শেষ লেখা হতে যাচ্ছে । শেষ শক্তিটুকু জমিয়ে লিখাটা লিখছি । আমার রেখে যাওয়া জিনিসের মধ্যে ডায়রিটা রিসানের ভাগে পড়েছে । ছেলেটার মধ্যে মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর ঈশ্বর প্রদত্ত ক্ষমতা আছে । ও অনেক ভালো থাকুক । লিখতে লিখতে চোখের কোণে জল জমে একফোটা । এই জলটা কার জন্য । জানিনা । খুব মিস করব । বাবা মাকে, আমার ছোট্ট বোনটাকে । বন্ধুদের মিস তো করবই । সানি ভালো থাকুক । স্কুলের সামনে যে মামাটা আচার বিক্রি করত, তাকেও মিস করব অনেক । আচ্ছা, স্বর্গে কি আঁচার বিক্রি হয় । মনে হয়না । আরেকটা দিন বেঁচে থাকার শখ ছিল । আফসোস । যাহা চাই তাহা পাইনা ।

অবশেষে মে মাসের ২৭ তারিখে তার যুদ্ধটা শেষ হয়…

(এই লেখাটি যারা পড়বেন। তারা অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না। ভালোবাসার জয় হোক ।স্বপ্নযাত্রা পরিবার তার আত্নার শান্তি কামনা করছে ।)

পোষ্টটা কেমন লেগেছে সংক্ষেপে কমেন্টেস করে জানাবেন৷ T= (Thanks) V= (Very good) E= (Excellent) আপনাদের কমেন্ট দেখলে আমরা ভালো পোষ্ট দিতে উৎসাহ পাই।

Check Also

নুন্যতম মাধ্যমিক পাশে এই ব্যাংকে মোটা বেতনের চাকরির সুযোগ

একাধিক পদের জন্যে কর্মী নিয়োগ করবে এসবিআই। একাধিক পদের জন্যে হবে নিয়োগ। অনলাইন কিংবা সরাসরি ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *