ধেয়ে আসছে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় ‘গজ’; কতটা শক্তিশালী “গজ”? জেনে নিন বিস্তারিত…

কার্ত্তিক মাসের প্রায় মাঝামাঝি সময়ে পৌঁছে গেলেও এখনও কলকাতা শহর এবং শহরতলিতে শীতের আমেজ দেখা যায় নি। গ্রামাঞ্চলে যদিও শীতের আমেজ শুরু হয়েছে এক সপ্তাহ মতো সময় ধরে। ভোরের বেলা প্রাতঃভ্রমণে বার হওয়ার সময় হালকা ঠান্ডা অনুভূত হচ্ছে। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সে অনুভূতি আস্তে আস্তে কমে যাচ্ছে।

যদিও বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ ধীরে ধীরে হ্রাস পাচ্ছে এবং ত্বককে অনুভূত হচ্ছে খসখসে ভাব, তবুও যেন শীত পড়তেও পড়ছে না। আর শীতকালে শুরুতে যদি শীত জমাট ইনিংস না খেলে তাহলে পরবর্তী সময়ে যে শীতের প্রকোপ সে হারে বাড়বে তা কিন্তু নিশ্চিত হয়ে বলা যাচ্ছে না। উৎসবের হালখাতা প্রায় শেষের দিকে,

এই সময় আমাদের প্রায় প্রত্যেকের কাছে শীত যেন একটা মহোৎসব রূপে আসে। বাক্স বন্দী বা আলমারিতে অবচেতন অবস্থায় থাকা শীতের পোশাক আবার যেন তিন মাসের জন্য মুক্তি পায়। কিন্তু বর্তমানে যে পরিস্থিতি তাতে সেই তিন মাস কি আদৌ তিন মাস হবে তা নিয়ে দেখা দিয়েছে ঘোর অনিশ্চয়তা।

পশ্চিমবঙ্গের আবহাওয়া নির্ভর করে বঙ্গোপসাগর ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে উঠে থাকা নিম্নচাপ ও ঘূর্ণিঝড়ের উপর। গত মাসে দুর্গাপূজার সময় দেখেছি আমরা “তিতলি” নামের ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে প্রায় নষ্ট হতে বসেছিল আমাদের উৎসবের মজা। কিন্তু সে যাত্রায় আমরা বেশ পার পেয়েছি। উৎসবের মজা আমরা ষোল আনাই উপভোগ করেছি আনন্দের সঙ্গে।

কিন্তু শীতের অনুভূতি যা বিছানায় রাখতে পারে আমাদের সকালের বেশ খানিকটা সময় সেই অনুভূতিকে আমরা কী আর তাড়াতাড়ি পাব না? সেই হিমশীতল বা কনকনে ঠান্ডা হাওয়া জানলার ফাঁক দিয়ে বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করে আমাদেরকে বিছানায় বন্দী করে রাখবে সেই রকম মনোরম পরিবেশ আদৌ কি তৈরি হবে?

আর এই চিন্তায় নতুন সংযোজন ঘূর্ণিঝড় “গজ”।বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ পূর্ব দিকে তৈরি হওয়া একটি নিম্নচাপ ধীরে ধীরে শক্তি বাড়িয়ে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে।শনিবার বিকেল পর্যন্ত এই নিম্নচাপটির অবস্থান ছিল মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং দক্ষিণ পূর্ব দিকে।কিন্তু রবিবারের মধ্যেই এই নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়” গজ” নামে আত্মপ্রকাশ করেছে।

কীভাবে এলো এই নাম ? নামের অর্থ?

গত ঘূর্ণিঝড় যা আমরা জেনেছিলাম “তিতলি”নামে তা দিয়েছিল আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র পাকিস্থান।আর এইবার নাম দেওয়ার পালা ছিল থাইল্যান্ডের।তাই তারা এই বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া নতুন ঘূর্ণিঝড়টির নাম দিয়েছে গজ।যার অর্থ গিয়ে দাঁড়ায় হস্তী বা হাতি।অর্থাৎ এই ঘূর্ণিঝড় হাতির মতোই ক্ষমতাশীল হয়ে আছড়ে পড়বে এবং তার ফলে প্রচন্ড ক্ষয় ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা।

এ প্রসঙ্গে জেনে রাখা দরকার ভারত উপমহাদেশে অর্থাৎ আরব সাগর, ভারত মহাসাগর এবং বঙ্গোপসাগরে যে সমস্ত সাইক্লোন বা নিম্নচাপ পরবর্তী ক্ষেত্রে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি করে তার নাম দিয়ে থাকে ভারত সহ প্রতিবেশী আটটি দেশ এ দেশগুলি হল ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, মায়ানমার, মালদ্বীপ, থাইল্যান্ড, শ্রীলংকা এবং ওমান।

ভারতের যকোন কোন অঞ্চলে প্রভাব পড়বে

ভারতের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় “গজ”যে অঞ্চলে আছড়ে পড়বে বলে ভারতীয় আবহাওয়া দফতরের তরফ থেকে সতর্কতা জানানো হয়েছে তা হল তামিলনাড়ু এবং অন্ধ্রপ্রদেশ এবং পন্ডিচেরী। প্রধানত তামিলনাড়ুর উত্তর দিকে কারিকাল এবং কুদ্দলোর উপকূলের মধ্যে আগামী ১৪ই নভেম্বর মধ্যরাত্রিতে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনার কথা জানানো হয়েছে।এছাড়াও দক্ষিণ অন্ধ্রপ্রদেশে শ্রীহরিকোটটা এবং পন্ডিচেরী উপকূলের দিকেও এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ঝড়বৃষ্টি হবে।

ঘূর্ণিঝড় “গজ”এর ক্ষমতা কিরকম?

আবহাওয়া দফতর এবং উপগ্রহ থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী জানা যাচ্ছে এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ঘন্টায় ৬৫কিমি থেকে সর্বোচ্চ ১০০কিমি গতিবেগে ঝড় বয়ে যাবে এবং সেইসঙ্গে শুরু হবে ভারী বৃষ্টি।

সতর্কতা

তামিলনাড়ু এবং অন্ধ্র উপকূলে যেসব মৎস্যজীবি মানুষ মাছ ধরার জন্য গভীর সমুদ্রে সাধারণত যায় তাদের সতর্ক করা হয়েছে তারা যেন রবিবার থেকেই এইসব উপকূলে মাছ ধরতে না যায়।এবং যারা ইতিমধ্যেই চলে গিয়েছে তাদের উদ্দেশ্যে জানানো হয়েছে তারা যেন ১২ই নভেম্বরের মধ্যেই স্থলভুমিতে ফিরে আসে।

আমাদের রাজ্যে এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব কতটা?

এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গে সেই রকম কিছু ক্ষতিকর প্রভাব না পড়লেও বায়ুমণ্ডলে জলীয় বাষ্পের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে যার ফলে শীতের আমেজ থেকে পশ্চিমবঙ্গবাসী আবার কিছুটা হতাশ হবে। অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গে শীত পড়তে আরো বেশ কিছুটা সময় লাগবে তাই এখনও বাড়ি বাড়ি রাত্রে ঘুমানোর আগে ফ্যান চালানো বন্ধ হবে না বলে অনুমান করা হচ্ছে।

পোষ্টটা কেমন লেগেছে সংক্ষেপে কমেন্টেস করে জানাবেন৷ T= (Thanks) V= (Very good) E= (Excellent) আপনাদের কমেন্ট দেখলে আমরা ভালো পোষ্ট দিতে উৎসাহ পাই।

Check Also

নুন্যতম মাধ্যমিক পাশে এই ব্যাংকে মোটা বেতনের চাকরির সুযোগ

একাধিক পদের জন্যে কর্মী নিয়োগ করবে এসবিআই। একাধিক পদের জন্যে হবে নিয়োগ। অনলাইন কিংবা সরাসরি ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *