Sunday , 18 October 2020
[cvct-advance id=20554]

দামি রেস্টুরেন্টে না খেয়ে হাজার হাজার ক্ষুধার্ত শিশুর খাবারের ব্যবস্থা করে দিয়েছিঃ সাদিও মানে

বর্তমানে ফুটবল বিশ্বে যে কয়জন খেলোয়াড় মাঠ মাতাচ্ছে তাঁর মধ্যে সাদিও মানে

অন্যতম। মাঠে তিনি যতটা আগ্রাসী ফুটবল খেলেন মাঠের বাইরে পুরোটায় ভিন্ন। এক

কথায় সাধারন জীবন-যাপন করেন এই লিভারপুল স্ট্রাইকার।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় মানের এমন ছবি ভাইরাল হওয়ার পর জানালেন নিজের

সহজ জীবনযাপনের রহস্য।

এত বড় তারকা হয়েও সাধারণ জীবন যাপনের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘দশটি

ফেরারি গাড়ী, বিশটি ডায়মণ্ড ঘড়ি আর বিলাসবহুল বাড়ি, নিত্যনতুন মডেলের বিলাস

সামগ্রী এসব দিয়ে কী হবে। যেই মুহুর্তে আমার নিঃশ্বাস শেষ সেই মুহুর্ত থেকে এসবের

মালিকানাও শেষ।’

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘আমি নিজের বিলাস বহুল বাড়ির পরিবর্তে অসংখ্য স্কুল

তৈরি করেছি, দামি পোষাকে ওয়্যারড্রব ভর্তি না করে অসংখ্য বস্ত্রহীন মানুষকে বস্ত্র

দিয়েছি। প্রতি সপ্তাহে সপ্তাহে দামি রেস্টুরেন্টে না খেয়ে হাজার হাজার ক্ষুধার্ত শিশুর

খাবারের ব্যবস্থা করে দিয়েছি।’

সাদিও মানের শেষ ইচ্ছা হচ্ছে, মৃত্যুর পর যাতে তিনি যাদের সাহায্য করেছেন তারা যেন

তাঁকে স্মরণ করেন। এতেই শান্তি পাবেন এই তারকা ফুটবলার।

প্রেম-ভালোবাসা বনাম জৈবিক তাড়না

একটা মেয়ের শরীরের গন্ধ তোমার ভালো লাগে। এটা হচ্ছে প্রেম। আরেকটা মেয়ে

আছে, যাকে তুমি অনুভব করো। তাকে ভালো লাগার জন্য তার উপস্থিতি কিংবা শরীরের

গন্ধ লাগে না। এটা হচ্ছে ভালোবাসা। কোনো একটা মেয়ের সঙ্গে রুমডেট করে তুমি

আনন্দ পাও। আরেকটা মেয়ে আছে যার কথা ভাবলেই তুমি আনন্দ পাও। প্রথমজন

হচ্ছে তোমার প্রেমিকা। দ্বিতীয়জন হচ্ছে তোমার ভালোবাসার মানুষ। তোমার বন্ধু মহলে

কোনো একটা মেয়ে আছে যার সঙ্গে তুমি গা ঘেঁষে বসার জন্য অস্থির থাকো। এই

মেয়েটি হচ্ছে তোমার কামনার বস্তু।

তোমার মস্তিস্কের অন্দরমহলে একটা মেয়ে আছে যার সঙ্গে তুমি গা ঘেঁষে বসার জন্য

অস্থির না। কিন্তু তার অনুপস্থিতি তোমাকে অস্থির করে তোলে। তার সঙ্গে কথা বলার

জন্য তুমি অস্থির। এই মেয়েটা হচ্ছে তোমার ভালোবাসার মানুষ।

একটা মেয়ের ন্যুড ছবি দেখার জন্য সব সময় তুমি অপেক্ষা কর। আরেকটা মেয়ে

আছে যার ন্যুড পিক তোমার কল্পনায়ও আসে না। চাইলেও তুমি আনতে পারো না।

প্রথমজন হচ্ছে তোমার প্রেমিকা। পরের জন হচ্ছে তোমার ভালোবাসা।

একটা মেয়ের সঙ্গে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফোনে মজা নেওয়ার পরও তুমি মেয়েটার কথা

সেভাবে চিন্তা কর না। সবকিছু ফোনের ওই মজা পর্যন্তই। কিন্তু এমন একজন মানুষের

অস্তিত্ব তোমার জীবনে আছে; যার সঙ্গে ফোনে কথা না বলেও সব সময়ই তার কথা

ভাবো তুমি। বালক… প্রথম জন তোমার টাইম পাসের প্রেমিকা। পরের জন তোমার

ভালোবাসার মানুষ।

কোনো মেয়ে তোমার সঙ্গে ইগো দেখালে তুমিও তার সঙ্গে সমানতালে ইগো দেখাও।

কিন্তু তোমার জীবনে এমন একজন মানুষ আছে যার শত অবহেলাতেও তুমি তার সঙ্গে

ইগো দেখাতে পার না। প্রথমজন তোমার প্রেমিকা। পরের জন তোমার ভালোবাসা।

মেডিকেল সায়েন্স প্রেম আর ভালোবাসার ডেফিনেশন দিতে গিয়ে পার্থক্যটা তুলে

ধরেছে এভাবে, ‘শারীরিক আনন্দ কেটে যাবার পরেও যদি কোনো মানুষের সঙ্গে তোমার

আজীবন থাকতে ইচ্ছে করে তাহলে সেটা হচ্ছে ভালোবাসা। আর যদি সে রকম ইচ্ছে না

আসে তাহলে ব্যাপারটা ছিল প্রেম।’

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, দুনিয়ার বেশিরভাগ মানুষ প্রেমকে ভালোবাসা বলে

চালিয়ে দেয়। প্রেম করতে করতে তারা একসময় ভালোবাসাই ভুলে যায়। বুঝতে পারে

তখন, যখন আচমকা তাদের ভালোবাসার মানুষের সঙ্গে দেখা হয়ে যায়।

এই কারণে দেখবেন দুই তিনটা প্রেম করে সময় কাটানো খারাপ মেয়েটাও নির্জনে কারো

না কারো জন্য কেঁদে কেঁদে অস্থির হয়। সারাদিন অনলাইনে মেয়েদের ফ্লার্ট করতে থাকা

ছেলেটাও এক সময় ক্লান্ত হয়ে ক্ষান্ত দেয় ইনবক্সের নোংরা আলাপে। ভাবতে থাকে

মাথার ভেতরে ঘুরতে থাকা মেয়েটাকে।

শারীরিক আকর্ষণ অনেকের প্রতিই থাকতে পারে। কিন্তু মনের টানটা একজনের প্রতিই

থাকে। সেই একজনই হচ্ছে ভালোবাসার মানুষ, আর বাকিরা হচ্ছে প্রেমিকা। কিন্তু

অনেকের সঙ্গে প্রেম চালিয়ে যাওয়া ছেলেটা কখন যে নিজের অজান্তে ভালোবাসা

ব্যাপারটাকে কবর দিয়ে দেয়, তা সে নিজেও জানে না। যখন জানে তখন আর কিছু

করার থাকে না। কারণ ইতোমধ্যে সে হয়ে গেছে এটা অনুভুতিশুন্য রক্ত মাংসের রোবট।

বিধাতা এদের কপাল থেকে ঘষে ঘষে চার অক্ষরের ‘ভালোবাসা’ শব্দটি তুলে নেন। সেই

জায়গায় লিখে দেন দুই অক্ষরের ‘প্রেম’। এই কারণে যার প্রেম হয় তার শুধু প্রেমই হয়।

একটা পর একটা… চলতেই থাকে।

প্রেম হচ্ছে ড্রাগের মতো। আর ভালোবাসাটা অমৃতের মতো। বালক… তুমি ভালোবাসায়

বাঁচতে শেখো, প্রেমে নয়।

Check Also

গ’র্ভব’তী হয়েও বি’ষাক্ত সাপের মুখ থেকে মালিককে বাঁচাতে পিছুপা হয়নি সে…

আমরা বাড়িতে অনেকেই কুকুর পুষে থাকি। কুকুর যে প্রভুভক্ত। নিজের প্রাণ বলি দিয়ে ফের তার ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!