জানেন কি? “N” দিয়ে শুরু নামের মানুষের চরিত্র কেমন হয় ?

নাম আমাদের পরিচয়ের একেবারে প্রথম পদক্ষেপ হয়। এখান থেকেই শুরু হয় একটা মানুষকে চেনার যাত্রা। তাই তো নামের ভেতরে লুকিয়ে থাকে প্রতিটি মানুষের সম্পর্কে নানা অজানা কথা,যে সম্পর্কে অনেকে খোঁজই রাখেন না। সেই অজানা কথার সন্ধান পেয়ে গেলে বুঝবেন নাম শুধুই কয়েকটা অক্ষর নয়,আরও অনেক কিছু।

একাধিক কেস স্টাডি করে দেখা গেছে নাম একটা মানুষের চরিত্রকে নানাভাবে প্রভাবিত করে থাকে। এমনকি নানা পরিস্থিতিতে কে কেমন রকম সিদ্ধান্ত নেবেন, তাও কিন্তু অনেকাংশে নির্ভর করে নামের উপরই। “এন” অক্ষর দিয়ে যাদের নাম শুরু হয়, তাদের চরিত্র কেমন হয়, চলুন সেদিকে একটু নজর দেওয়া যাক।

অক্ষর নিয়ে যারা গবেষণা করেন, তাদের মতে “এন” অক্ষর খুব এনার্জেটিক। তাই তো এন দিয়ে যাদের নাম শুরু হয় তাদের সঙ্গে যারাই থাকেন না কেন,তাদের মন ভাল হতে একেবারই সময় লাগে না। এমন নামের মানুষদের চরিত্রের আরও বেশ কিছু স্পেশাল বৈশিষ্ট্য থাকে,চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১) যে কোনও বিষয় নিয়ে এদের পরিষ্কার ভাবনা থাকে। কম সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া, এদের চরিত্রের একটি বড় গুণ। এমন মানুষেরা খুব অমায়িক হন এবং যে কোনও মানুষের সঙ্গে মিশতে এদের কয়েক সেকেন্ডও সময় লাগে না। তাই তো এমন মানুষদের বন্ধুর সংখ্যা কম হয় না। তবে এন অক্ষর দিয়ে যাদের নাম শুরু হয়, তাদের যে কোনও মানুষকে প্রভাবিত করতে একেবারেই সময় লাগে না।

২) এরা শুধুমাত্র স্বার্থের কথা ভেবে বন্ধুত্ব করতে পছন্দ করেন না। যাদের সঙ্গে মনের মিল হয়,কেবল তাদের সঙ্গেই এমন বিশেষ সম্পর্ক স্থাপন করে থাকেন। শুধু তাই নয়,যাদের সঙ্গে একবার বন্ধুত্ব হয়ে যায়,তাদের সঙ্গে এরা অমৃত্যু ছাড়েন না। যেসব মেয়েদের নাম এন দিয়ে শুরু হয়,তারা খুব একটা অচেনা মানুষদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে পছন্দ করেন না। কিন্তু কারও সঙ্গে যদি একবার বন্ধুত্ব করে ফেলেন,তাহলে সেই সম্পর্ককে কীভাবে সুন্দরভাবে রাখতে হয়,তা এদের থেকে ভাল কেউ জানেন না।

৩) জীবনে সাফল্য পেতে এদের প্রতি মুহূর্তে লড়াই করতে হয়। এরা ভিতর থেকে এতটা শক্তিশালী হয়ে ওঠেন যে জীবন পথে চলতে এদের কোনও সমস্যাই হয় না। বিশেষজ্ঞদের মতে এমন মানুষেরা “মাইন্ড প্লেয়ার” হন। যে কোনও মানুষকে প্রভাবিত করে নিজের কাজটা কিভাবে গুছিয়ে নিতে হয়,সে সম্পর্কে এরা খুব ভাল জানেন।

৪) এদের দেখে শান্ত স্বভাবের মনে হলেও আসলে এরা কিন্তু খুব রাগী প্রকৃতির মানুষ হন। শুধু তাই নয়, একবার কোনও সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলে সেটা যেভাবেই হোক তা বাস্তবিয়িত করতেই হবে। লড়াই করে সফল হলেও নিজের সম্পর্কে কোনও খারপ কথা শুনতে একবারেই ভালবাসেন না।

৫) খোলা মনের মানুষ হলেও এদের সহজে চিনতে পারা যায় না। কারণ এদের মনের ভিতর কী চলছে তা এরা সহজে প্রকাশ করে। ফলে মানুষ হিসেবে এরা কেমন, তা বুঝতে বেশিরভাগ সময়ই বাকিরা ভুল করে ফেলেন। কারও উপর এরা একবার রেগে গেলে সেই মানুষকে যতক্ষণ না শাস্তি দিচ্ছেন,ততক্ষণ এদের মন শান্ত হতে চায় না।

৬) এসব মানুষের কথা বলার স্টাইল,নিজেকে অন্যজনের সামনে উপস্থাপন করার স্টাইল এতটাই চমকপ্রদ হয় যে কারও পক্ষেই এমন মানুষদের এড়িয়ে চলা সম্ভব হয় না।

পোষ্টটা কেমন লেগেছে সংক্ষেপে কমেন্টেস করে জানাবেন৷ T= (Thanks) V= (Very good) E= (Excellent) আপনাদের কমেন্ট দেখলে আমরা ভালো পোষ্ট দিতে উৎসাহ পাই।

Check Also

স্মার্টফোনে পর্ন দেখেন? এখনই এই পাঁচটি বিপদ হইতে সাবধান

আপনার হাতের নাগালে ল্যাপটপ বা কম্পিউটার থাকলেও অনেক সময় অলসতাবসত স্মার্টফোনই এখন মানুষের প্রিয় বন্ধু। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *