চড়া রোদে বাইরে বেরিয়ে সতর্ক থাকুন, সুস্থ থাকুন

তাপমাত্রা ৪০ ছুঁই ছুঁই৷ প্রায়ই অসুস্থ বোধ করছেন এই গরমে? তবু বাইরে বেরোতেই হয় নানা প্রয়োজনে৷ তখনই ঘটে বিপত্তি৷ অতিরিক্ত তাপে অসুস্থ হয়ে পড়ার সামান্য লক্ষ্মণগুলিকে উপেক্ষা করার ফলেই তৈরি হয় জলশূণ্যতা ও হিট স্ট্রোকের মত মারাত্মক রোগ৷ যা কখনও কখনও মৃ্ত্যু পর্যন্ত ডেকে আনতে পারে৷

এই রোগগুলির লক্ষ্মণ জানুন৷ সতর্ক থাকুন৷ কীভাবে প্রতিকার হবে এই অসুস্থতার রইল তারই হদিশ৷

জলশূণ্যতা বা ডিহাইড্রেশন: অত্যধিক তাপমাত্রা শরীরের নুন ও জল শুষে নেয়৷ বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে সঙ্গে শরীরের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রাও বেড়ে যায়। ফলে শরীরে যে পরিমাণ জলের চাহিদা বাড়ে, তা পূরণ হয় না৷

লক্ষণ:
১। ক্রমশ গলা ও মুখ শুকিয়ে যাবে
২। পেটে ব্যথা শুরু হবে৷
৩। হাত ও পায়ে ক্র্যাম্প বা টান ধরবে
৪। মাংসপেশিতে ব্যথা শুরু হবে
৫। অতিরিক্ত মাত্রায় ঘাম হবে
৬। চোখে ঝাপসা দেখবেন
৭। মাথা ব্যথা, বমি বমি ভাব ও দুর্বলতাও লাগবে।

প্রতিরোধ
যখনই এই ধরণের লক্ষ্ণণ দেখবেন, অপেক্ষাকৃত ঠাণ্ডা জায়গায় বসে পড়ুন৷ ঠাণ্ডা জল খেতে থাকুন বারেবারে৷ প্রয়োজনে নুন চিনির জল খান৷

হিট স্ট্রোক : গরমের সবচেয়ে বিপজ্জনক অসুস্থতাই হলো হিট স্ট্রোক। হিট স্ট্রোকের কারণে অনেক মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটে। তীব্র রোদ ও গরমে শরীরের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রার তারতম্য ঘটে। অনেক সময়ই মানুষ হিট স্ট্রোকের লক্ষণগুলো বুঝতে পারে না বা অনেকে জানেও না। জেনে নিন হিট স্ট্রোকের কারণগুলো-

লক্ষণ:
১। শরীরের তাপমাত্রা খুব বেশি বেড়ে যাবে ও শরীরের জল দ্রুত কমে যেতে থাকবে।
২। ত্বক শুষ্ক ও ফ্যাকাসে দেখাবে ও অনেক বেশি ঘাম হবে।
৩। শ্বাস ও প্রশ্বাসের দিকে লক্ষ্য করে যদি দেখেন শ্বাস ঘন হয়ে আসছে বুঝবেন হিট স্ট্রোকের লক্ষ্মণ।
৪। বমি শুরু হবে
৫। মাথা ঘোরা শুরু হবে, অজ্ঞানও হয়ে যেতে পারেন

প্রতিরোধ:
দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান৷ হিট স্ট্রোকের রোগিকে স্যালাইন জল, লেবুর সরবত, ফলের শরবত বা গ্লুকোজ দিতে পারেন৷ শরীরে জল ঢেলে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করতে হবে৷

Check Also

আসুন জেনে নেই চিনা বাদাম এর অজানা উপকার

সববয়সের মানুষের জন্য চিনা বাদাম স্বাস্থ্যসম্মত খাবার। শখ করে কখনো কখনো হয়তো খাওয়া হয় তবে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *