Sunday , 5 April 2020

ক্যান্সারে মারা গেছে স্বামী, বিনামূল্যে ১০০০ ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসা দায়িত্ব নিলেন স্ত্রী

ক্যান্সার কেড়ে নিয়েছে স্বামীর প্রাণ। তার পরেও ভেঙে পড়েননি স্ত্রী। স্বামীর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছেন ডিম্পল পারমার।

ভারতের মুম্বাইয়ে ২০১৮ সালে স্বামীর স্মৃতিতে লাভ হিলস ক্যান্সার সংস্থার প্রতিষ্ঠা করেছেন ওই নারী। তার সংস্থা বিনামূল্যে ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসা ও পরামর্শ দেয়। অন্তত এক হাজার মানুষ সেখানে চিকিৎসাধীন।অনেক রোগীকে আবার টেলি কনফারেন্সের মাধ্যমেও ক্যান্সার সংক্রান্ত নানা পরামর্শ দেওয়া হয়। জানা গেছে, সংস্থায় অন্তত ৫০ জন চিকিৎসক আছেন।

নীতেশ প্রজাপতির সঙ্গে ডিম্পলের আলাপ হয় ২০১৬ সালে আইআইএম কলকাতায় এমবিএ পড়ার সময়। তখন দু’‌জনেই ক্যারিয়ার নিয়ে ব্যস্ত। সবকিছুই ঠিকঠাক চলছিল। হঠাৎ করেই ডাক্তারি পরীক্ষায় নীতেশের ক্যান্সার ধরা পড়ে। ওই সময় তার ক্যান্সারের স্টেজ তৃতীয় পর্যায়ে চলে গিয়েছিল।

চিকিৎসার জন্য নীতেশ মুম্বাই চলে যান। কয়েকমাস পর আবারো তিনি কলকাতায় ফিরে আসেন। এই কঠিন সময়ে সবসময় নীতেশের পাশে ছিলেন ডিম্পল। তাকে মানসিক শক্তি যুগিয়েছেন।

তারপর একদিন নীতেশই বিয়ের প্রস্তাব দেন ডিম্পলকে। আর ডিম্পলও রাজি হয়ে যান। ডিম্পলের মতে, ক্যান্সারের কথা আমি ভাবিইনি। নীতেশকে ভালোবাসতাম।

২০১৭ সালের এপ্রিলে এমবিএ পাস করার পর দু’‌জনে বিয়ে করেন। তার কিছুদিন আগেই জানা যায়, নীতেশ ক্যান্সার মুক্ত। খুশির বন্যা বয়ে গিয়েছিল দু’‌জনের জীবনে।

কিন্তু ঠিক দুই মাস পর আবারো মা’রণব্যাধি ফিরে আসে নীতেশের শরীরে। চিকিৎসকরা জানিয়ে দেন, বড়জোড় ছয় মাসের অতিথি নীতেশ। এরপর চিকিৎসার জন্য নীতেশকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র চলে যান ডিম্পল। কিন্তু ২০১৮ সালের মার্চে পৃথিবী ছেড়ে চলে যান নীতেশ।

ডিম্পল জানান, নীতেশ বেঁচে থাকতেই আমরা ক্যান্সার আক্রান্তদের জন্য অনলাইনে ফান্ড সংগ্রহ শুরু করি।স্বামী মারা যাওয়ার পর একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হন ২৮ বছরের ডিম্পল। তারপর শুরু করেন লাভ হিলস। যা ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসায় দারুণ সাড়া ফেলেছে।

Check Also

করোনাভাইরাস আতঙ্ক! মেক-আপের ক্ষেত্রেও চাই বাড়তি সতর্কতা

বেশির ভাগ মহিলার ক্ষেত্রেই মেকআপ হল একটি দৈনন্দিন অত্যাবশ্যকীয় বিষয়। মেকআপ ছাড়াই রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন, ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *