Friday , 6 December 2019

এবার হাতে হাতে প্যান, খরচ মাত্র ৬৬ টাকা, জানুন পদ্ধতি…

প্যান কার্ড এমনই একটা জিনিস যা সবার জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বাচ্চা থেকে শুরু করে যুবক, বুড়ো সবারই প্যান কার্ড প্রয়োজনীয়। প্যান কার্ড ছাড়া আমরা সবাই অচল। এখন সব ক্ষেত্রেই প্যান বাধ্যতামুলক করে দেওয়া হয়েছে। ব্যাংকের খাতা খোলার জন্য বা আয়কর রিটার্ন দাখিল করার জন্য, সব জায়গায়ই দরকার হয় প্যান কার্ড। এমনকি আপনি যদি কোনো নতুন অফিস জয়েন করেন সেইখানেও প্যান বাধ্যতামুলক।

এই প্যান কার্ড আবেদন করার জন্য সমস্ত ডকুমেন্টসের প্রয়োজন হয়। প্যান কার্ড আবেদন করার জন্য ফর্ম পুরন করে তার সাথে ডকুমেন্টস দেওয়ার দরকার হয়। যদিও এতদিন এসব দরকার হত, কিন্ত এখন কোনোরকম ডকুমেন্টসের আর প্রয়োজন নেই।

এমনকি আগে প্যান কার্ড আবেদন করার পর আসতে সময় লাগত ১৫ দিন। কিন্ত এখন ডকুমেন্টসের কোনো প্রয়োজন না থাকায় আপনি আপনার প্যান কার্ড হাতে হাতে পেতে পারেন। তার জন্য আর আপনাকে ১৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে না।

এখন ব্যাপার হল আপনি কোথা থেকে আবেদন করবেন। আনেক সময়ই আমরা এজেন্টের মাধ্যামে আবেদন করে থাকি। সেটা সময় সাপেক্ষ এবং পয়সাও বেশি লাগে। তাই আপনি সরাসরি আয়কর বিভাগ থেকে আবেদন করতে পারেন।

আয়কর বিভাগ থেকে আবেদন করলে আপনি একটা সুবিধা পাবেন। আপনি খুব তাড়াতাড়ি ই-প্যান পেয়ে যাবেন। ই-প্যান হল ডিজিটালি সাক্ষ্যরিত প্যান কার্ড। ই-প্যান আবেদন করতে গেলে আপনার কাছে থাকতে হবে একটা বৈধ আধার নম্বর বা ডিজিটাল সই।

এবার আসা যাক খরচের ব্যাপারে। এই প্যান কার্ড বানাতে খরচও বেশি নয়। আবেদনের সময় ২ রকম খরছ হতে পারে। একটা হয় হার্ড কপি প্যান কার্ড, আর হয় ই-প্যান কার্ড। আপনাকে বেছে নিতে হবে কোনটা আপনি নেবেন।

যদি ই-প্যানের সাথে হার্ড কপি প্যান দরকার হয় তাহলে ১০৭ টাকা দিতে হয়, আর যদি শুধু ই-প্যান হয় তাহলে ৬৬ টাকায় হয়ে যাবে। কিভাবে করা যাবে আবেদন – http://www.pan.utiitsl.com/PAN/newA.do ওয়েবসাইটে ই-প্যানের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

নতুন প্যান কার্ডের জন্য আবেদন করতে (ফর্ম ৪৯ এ) কিল্ক করতে হবে। এরপর ই-প্যান করতে ডিজিটাল মোড সিলেক্ট করতে হবে। আবেদনকারীকে ডকুমেন্টস জমা দেওয়ার দরকার নেই, শুধুমাত্র আধার ভিত্তিক ই-সিগ্নেচার বা ডিজিটাল সই ব্যাবহার করতে হবে।

তবে সবার আগে আপনার মোবাইল নম্বরটি আধারের সাথে সংজুক্ত আছে কিনা তা নিশ্চিত করুন। ওই আধারের সাথে যুক্ত মোবাইল নম্বরে একটা ওটিপি যাবে। ওই ওটিপি দিয়ে নির্ধারিত ফরম্যাটে ছবি আপলোড করতে হবে। ব্যাস তাহলেই কাজ শেষ, ই-প্যান সাথে সাথে প্রিন্ট করাতে পারেন বা হার্ডকপির জন্য ওয়েট করতে পারেন। তবে সেটা এক সপ্তাহের বেশি নয়।

Check Also

রেস্তোরাঁর তরুণীকে টিপস হিসেবে গাড়ি দিলেন দম্পতি!

এক তরুণী রেস্তোরাঁয় কাজ করেন। প্রতিদিন প্রায় ২২ কিলোমিটার হেঁটে তিনি ওই রেস্তোরাঁয় যান। তার ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *